আংগারিয়া ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন; নির্বাচনী কাজে বাঁধা ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ

আংগারিয়া ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন; নির্বাচনী কাজে বাঁধা ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ

শরীয়তপুর সদর উপজেলার আংগারিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার হাওলাদার ও তার কর্মী সমর্থকদের নির্বাচনী কাজে বাঁধা ও ভয় ভীতি প্রদর্শন করে  হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আনোয়ার হাওলাদার। অভিযোগের তীর নৌকার প্রার্থী আসমা আক্তার, তার স্বামী শরীয়তপুর পুলিশ হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. মনিরুল ইসলাম এবং তার ভাই র‍্যাব সদস্য হান্নান মোড়লের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) সকাল ১১টায় বিদ্রোহী প্রার্থী আনোয়ার হাওলাদার আংগারিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ ভাষাণচরে তার নিজ বাস ভবনে সংবাদ সম্মেলন করে  অভিযোগ করে বলেন, ‘জনগণের ভালবাসার প্রতিদান দিতে আমি নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। কিন্তু আমি বা আমার সমর্থক কেউ কোন প্রচারণায় অংশ নিতে পারছিনা। আমার পোস্টার ছিঁড়ে ফেলছে। পুরো ইউনিয়নে কোথাও আমার কোন পোস্টার নাই। আমার জন্য কেউ ভোট চাইলে তাকে মারধর করে হুমকি ধামকি দিচ্ছে। আমার প্রচারণার মাইক ভাংচুর করে লুট করে নিয়ে গেছে।’

বিজ্ঞাপণ

তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, ‘নৌকার প্রার্থী আসমা আক্তার সাবেক ছাত্রদলের নেত্রী ছিলেন। তার ভাই আব্দুল হক এখনও বিএনপির পোস্টেট নেতা। তিনি এখন বিএনপি’র লোক নিয়ে আমাদের উপর হামলা নির্যাতন করছে। তার স্বামী ডা. মনিরুল ইসলাম শরীয়তপুর পুলিশ হাসপাতালের ডাক্তার হওয়ার কারণে পুলিশকে তার ইচ্ছেমত ব্যবহার করে গ্রেফতারের হুমকি ধামকি প্রদান করছে। পাশাপাশি আসমা আক্তারের ভাই হান্নান মোড়ল র‍্যাবে কর্মরত। সে নির্বাচনের জন্য ছুটি নিয়ে এসে আমার কর্মীদের র‍্যাব দিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই!
এ বিষয়ে, আওয়ামীলীগের প্রার্থী আসমা আক্তারের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে করা অভিযোগগুলো মিথ্যা ও বানোয়াট। আমার জনপ্রিয়তা দেখে ও (আনোয়ার হাওলাদার) পাগল হয়ে গেছে।’

১১ নভেম্বর শরীয়তপুর সদর উপজেলার ৯টি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে চেয়ারম্যান ৩০ জন, সংরক্ষিত নারী সদস্য ৮৬ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২৭৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। সদরের আংগারিয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগের (নৌকা প্রতীক) মনোনয়ন পেয়েছেন আসমা আক্তার। আর বিদ্রোহী প্রার্থী (আনারস প্রতীক) হয়ে নির্বাচন করছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আনোয়ার হোসেন হাওলাদার। বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় আনোয়ারকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছে।

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
রাজনীতি শরিয়তপুর সারাদেশ